Sale!

রাজশাহীর গোপালভোগ আম (20 কেজি)

৳ 850

  • মিনিমাম বিশ (২০) কেজি আম অর্ডার করতে হবে।
  • অর্ডারের সকল মূল্য আগাম পরিশোধ করতে হবে।
  • ডেলিভারি আম পৌছাতে তিন-পাঁচ দিন লাগতে পারে।
  • কুরিয়ার থেকে নিজ দায়িত্বে সংগ্রহ আম করতে হবে।
  • সুন্দরবন করিয়ারের মাধ্যমে আম ডেলিভারি হবে।

Out of stock

Description

বাংলাদেশের সব জাতের আমের মধ্যে রাজশাহীর গোপালভোগ আম অন্যতম অনেক সু-স্বাদু মিষ্টি একটি আমের নাম। গোপালভোগ আমের মাঘের শুরুতে মুকুল আসে এবং জোষ্ঠ মাসের মাঝামাঝি সময়ে পাঁকতে শুরু করে। ইংরেজিতে প্রায় প্রতিবছর মে মাসের ১০-২০ তারিখের মধ্যে গোপালভোগ আম গাছে পাঁকা শুরু হয়ে যায়। যা বলতে গেলে সবার আগেই পেঁকে যায়।

আগাম পাঁকা গোপালভোগ জাতের এই আমটি প্রতি বছর আমের মৌসুমের শুরুতেই পাওয়া যায়, য়ার রং পাঁকা অবস্থায় বেশির ভাগ সবুজ হয় উপরের দিকে হালকা হলুদ হয়ে থাকে, অতুলনীয় মিষ্টি স্বাদ ও গন্ধ, খোসা কিছুটা মোটা, আঁঠি পাতলা, বেশি আঁশ থাকেনা বললেই চলে। এর বোটা শক্ত, পাকার সময় বোটার আশে পাশে হলুদাভ বর্ণ ধারণ করে, অন্য অংশ গাড়ো সবুজ থাকে। গোপালভোগ আমের আঁশ নেই বললেই চলে।

আমটি খেতে খুবই মিষ্টি হয়। গোপালভোগ জাতের আম অনেকটা গোলাকৃতি মাঝারি সাইজ এর হয়ে থাকে। যার ওজনে ১৫০ গ্রাম থেকে ৩৫০ গ্রাম পর্যন্ত হয়। অন্যান্য জাতের আমের থেকে প্রায় অনেকটা সাইজে ছোট হয়। তবে রানি পছন্দ আমের তুলনায় একটু বড় হয়ে থাকে। গোপালভোগ আম খুব অল্প দিন বাজারে থাকে। দেশের প্রায় প্রতিটা জেলাতে গোপালভোগ আম হয়ে থাকে তবে রাজশাহী, চপাইনবাবগঞ্জে নাটোর জেলায় আম সব থেকে ভালো মানের গোপালভোগ আম হয়ে থাকে।

তাই রাজশাহীর আমের প্রতি দেশের মানুষের অনেক বেশি চাহিদা। আপনিও যদি রাজশাহীর আমে স্বাদ নিতে চান তাহলে আমচত্তর ডট কম আজই অর্ডার করুন। আমচত্তর .কম থেকে ক্রয় করলে আপনি পাবেন ১০০% রং এবং সকল প্রকার ক্ষতিকর কেমিক্যাল মুক্ত রাজশাহীর আম। যেমন- কার্বাইড, ফরমালিন, গ্রথ হরমন, কৃত্তিম রং ইত্যাদি এসকল ক্ষতিকর কেমিকেল মুক্ত সেরা আম। আমের অর্ডার করার আগে অবশ্যই হটলাইন নম্বরে কল করে বর্তমান বাজার মূল্য জেনে নিন কারণ আমের বাজার সবসময় পরিবর্তনশীল।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “রাজশাহীর গোপালভোগ আম (20 কেজি)”

Your email address will not be published. Required fields are marked *